আজঃ সোমবার, ১৮ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
২রা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, হেমন্তকাল

দোয়ারাবাজারের চাঞ্চল্যকর নূর আলম হত্যা মামলা ষড়যন্ত্রমূলকভাবে মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদেরকে ফাঁসানোর অভিযোগ

প্রকাশিতঃ August 18th, 2021, 3:55 pm |


দোয়ারাবাজারের চাঞ্চল্যকর নূর আলম হত্যা মামলা ষড়যন্ত্রমূলকভাবে মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদেরকে ফাঁসানোর অভিযোগ আসামীপক্ষের
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তার পরিবর্তন চান বাদী দোয়ারাবাজারের চাঞ্চল্যকর নূর আলম হত্যা মামলায় এক মুক্তিযোদ্ধার পরিবারকে ফাঁসানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ বিষয়ে সিলেট রেঞ্ছের ডি.আই.জি বরাবরে অভিযোগ দিয়েছেন বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম আব্দুস
ছাত্তারের স্ত্রী নূরজাহান বিবি।
এদিকে, চাঞ্চল্যকর এই হত্যাকান্ডের দোয়ারাবাজার থানা পুলিশের ভূমিকায় ক্ষুব্ধ হয়ে মামলার বাদী আব্দুল
মজিদ মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা (আই.ও) পরিবর্তনের জন্য সুনামগঞ্ছের পুলিশ সুপার বরাবরে আবেদন
করেছেন।
জানা গেছে, ৩ জুন দিবাগত রাতে কোন এক সময় অজ্ঞাত আততায়ীদের হাতে খুন হন দোয়াবাজার থানার
ধর্পনগর গ্রামের নুর ইসলামের পুত্র নুর আলম (১৯)। মামলার এজাহার থেকে জানা যায়, দোয়ারাবাজার
উপজেলার পশ্চিম বাংলা বাজারে আব্দুল মজিদের মালিকানাধীন খাবার হোটেলে রাত গত ৩ জুন রাতে খাওয়া
দাওয়ার পর দোকানেই ঘুমিয়েপড়েন আব্দুল মজিদের ভাই নুর আলম। সকাল সাড়ে ৬টার দিকে দোকান খোলা
হয়েছে কি-না জানার জন্য নুর আলমের মোবাইলে ফোন দেন আব্দুল মজিদ। কিšদ, নুর আলমের মোবাইল
ফোন তিনি বন্ধ পান। পরে, তার অপর ভাই রজব আলীর সাথে যোগাযোগ করলে রজব আলী জানায়, নুর
আলম দোকানে নেই। রজব আরো জানান, স্থানীয় জিরাগাঁও গ্রামের গুলফর আলীর ছেলে কামরুল ইসলাম
(২১) আগে রাত সাড়ে ১১টার দিকে নুর আলমকে দোকান থেকে ডেকে নিয়ে যায়। এরপর থেকে আব্দুল
মজিদ ও তার ভাই রজব আলী মিলে নুর আলমকে খোঁজাখুঁজি করতে থাকেন। সকাল ৯টার দিকে স্থানীয়
চাঁনপুর গ্রামের বাসিন্দা জনৈক সুফিয়ান আহমদ রজব আলীকে ফোন করে জানায়, নুর আলমের লাশ জিরাগাঁও
গ্রামের জনৈক আলী আহমদের ধানী জমিতে পড়ে আছে।
খবর পেয়ে আব্দুল মজিদসহ তার পরিবারের সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে ভাইয়ের লাশ দেখতে পান। নিহত নুর
আলমের বাম গাল, বাম কান, গলা, কোমরসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন ছিল।
খবর পেয়ে দোয়ারাবাজার থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য পাঠায়।
এ ঘটনায় নিহত নুর আলমের ভাই আব্দুল মজিদ বাদী হয়ে পরদিন ০৫/০৬/২০২১ ইং তারিখে অজ্ঞাতনামা
হত্যাকারীদের আসামী করে থানায় একটি মামলা দায়ের করেন (দোয়ারাবাজার তানার মামলা নং- ০৪, তাং-
০৫/০৬/২০২১ ইং)।
মামলার প্রেক্ষিতে পুলিশ ঐ রাতেই সন্দিগ্ধ আসামী কামরুল ইসলামের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে আসামী
কামরুলকে গ্রেফতার করে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করে থানায় নিয়ে আসে জিরাগাঁও গ্রামের মবশ^র আলীর
পুত্র ওসমান গণি (৩৫) ও ওমর গণি (২৬), মরহুম মুক্তিযোদ্ধা আব্দুছ ছাত্তারের পুত্র সুজন মিয়া ও সুজন মিয়ার
স্ত্রী রুবিনা বেগমকে।
পরবর্তীতে পুলিশ আসামী কামরুলকে আদালতে উপস্থাপন করলে আসামী কামরুল হত্যকান্ডে
সংশ্লিষ্ট থাকার কথা স্বীকার করে বিচারিক হাকিমের কাছে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান
করে।


এই বিভাগের আরো খবর

মতামত দিন

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ
আক্তার হোসেন সাগর

ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ
মোঃ শহীদ বকস

প্রধান উপদেষ্টাঃ
সৈয়দা জোহরা আলাউদ্দিন

উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্যঃ
আকলু মিয়া চৌধুরী
আউয়াল কালাম বেগ
এম. রহমান লতিফ

সম্পাদক কর্তৃক সেন্ট্রাল রোড, রাজনগর, মৌলভীবাজার থেকে প্রকাশিত ও প্রচারিত।
মোবাইলঃ ০১৭১৫-৪০৫১০৪
Email: [email protected] | [email protected] (সম্পাদক)


Developed by - Great IT
error: Content is protected !!